Breaking News

ভোটডাকাতির নির্বাচন প্রত্যাখ্যান — নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে পুনঃনির্বাচন দাবি

49153991_2174534632597779_8230786781008625664_n

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী) এর সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী এক বিবৃতিতে আজকের নির্বাচনকে ভোটডাকাতির নির্বাচন বলে আখ্যায়িত করে এই নির্বাচনের ফলাফলকে প্রত্যাখ্যান করেছেন এবং এই প্রহসনমূলক নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে পুনঃনির্বাচন দাবি করেছেন।

49098358_1054298034731479_5303470323415384064_oকমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী বিবৃতিতে বলেন, “আওয়ামী লীগ ভোটডাকাতির পূর্বপরিকল্পিত নীলনকশা বাস্তবায়ন করেছে আজ। সরকারি দল, প্রশাসনিক আমলাতন্ত্র, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও নির্বাচন কমিশন যৌথভাবে কাজ করে এই নির্বাচনী প্রহসন মঞ্চস্থ করেছে। গত রাতেই দেশের বিভিন্নস্থানে পুলিশের মাধ্যমে প্রিজাইডিং-পোলিং অফিসারদের চাপ দিয়ে ব্যালট বাক্সের একাংশ ভর্তি করা হয়েছে। একারণে অনেক স্থানে সকালে ভোটারদের উপস্থিতির কিছুক্ষণ পরই ব্যালট সংকট দেখা দেয়। ভোর থেকেই কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ ছিল সম্পূর্ণভাবে সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের হাতে। বিরোধী পোলিং এজেন্টদের ঢুকতে দেয়া হয়নি, কিছুক্ষেত্রে ঢুকলেও যখন এজেন্টরা নানা অনিয়মের প্রতিবাদ করেছে তখন তাদের বের করে দেয়া হয়েছে। অনেক জায়গায় সকালে ভোটারদের সবার সামনে নৌকায় সীল দিতে বাধ্য করা হয়েছে। অন্য প্রতীকে ভোট দিয়েছে টের পেলে কোথাও ব্যালট ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে। বেলা ১১টা-১২টার পর প্রকাশ্যে সীল মারা হয়েছে। যেখানে ভোটার উপস্থিতি বেশি সেখানে নানা অজুহাতে ভোটগ্রহণ ধীর করা হয়েছে। কেন্দ্র থেকে ভোটারদের ফিরিয়ে দেয়া, বিরোধী ভোটারদের তাড়িয়ে দেয়া, তাদের ওপর পুলিশের লাঠিচার্জের ঘটনাও ঘটেছে। গণহারে জাল ভোট প্রদান তো রয়েছেই। এসব প্রক্রিয়ায় ভোটডাকাতি নির্বিঘ্ন করতেই আওয়ামী লীগ নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকার ও নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন-এর দাবিকে নাকচ করে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের পক্ষে অনড় ছিল।”

বিবৃতিতে কিছু সুনির্দিষ্ট তথ্য উল্লেখ করা হয়, ঢাকা ১৬ আসনের ইসলামিয়া হাই স্কুল কেন্দ্রে বাসদ (মার্কসবাদী) প্রার্থীর কোদাল মার্কার পোলিং এজেন্টকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। মীরপুর বাংলা উচ্চ বিদ্যালয় বালক শাখায় সকাল ১১টায় পুলিশ-র‍্যাব-বিজিবি ভোটার ও মিডিয়াকমীদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়। বেলা ১২.৩০টায় কোদাল মার্কার প্রার্থী ভোটকেন্দ্রে গিয়ে গেটের তালা বন্ধ দেখেন। তিনি অনেক চেষ্টা করেও ভিতরে ঢুকতে পারেননি। তার উপস্থিতিতেই সেখানে আওয়ামী লীগের কর্মীরা সাধারণ ভোটারদের উপর আক্রমণ করে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এসময় বাসদ (মার্কসবাদী) কর্মী ইউসুফ রিপন সামান্য আহত হন।

জয়পুরহাট-৩ আসনে আয়মাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল ৯টায় কোদাল মার্কায় ভোট দিতে চাইলে বৃদ্ধ ভোটারকে বুথ থেকে বের করে দেয়া হয়। সেখানে মহিলা বুথে পর্দা তুলে দিয়ে প্রকাশ্যে ভোট দিতে বাধ্য করা হয়। পরবর্তীতে ভোটারদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়। বাসদ (মার্কসবাদী) প্রার্থী কমরেড শাহজাহান তালুকদার জনতাকে সংগঠিত করে বাধা দিলে তার ওপর চড়াও হয়, ক্ষেতলাল পৌরসভার মেয়র তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

চট্টগ্রাম-১১ আসনের বারিক মিয়া স্কুল কেন্দ্র থেকে বাসদ (মার্কসবাদী) প্রার্থীর কোদাল প্রতীকের এজেন্ট সুমনকে বেলা ১২টায় বের করে দেয়া হয়। এই কেন্দ্রে সকাল ১১টায় বাসদ (মার্কসবাদী) কর্মী সন্জিতের হাত থেকে ব্যালট কেড়ে নিয়ে নৌকায় সীল দেয়া হয়।

চাঁদপুর-৩ আসনে আক্কাস আলী রেলওয়ে একাডেমি কেন্দ্রে সকাল সাড়ে ৮টায় বুথ দখল করে সীল মারার প্রতিবাদ করায় বাসদ (মার্কসবাদী) কর্মী সাদ্দাম হোসেনকে মারধর করে সরকারী কর্মীরা। বাসদ (মার্কসবাদী) কর্মীরা ভোটারদের সংঘটিত করে রাস্তা অবরোধ করলে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা হামলা চালায়। পরে বিজিবি এসে আশ্বাস দিলেও ভোটাররা ভোট দিতে পারেনি।

বাসদ (মার্কসবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী বিবৃতিতে বলেন, এই প্রহসনমূলক নির্বাচনের ফলাফল গ্রহণযোগ্য নয় এবং এর মাধ্যমে গঠিত সরকার নৈতিক বৈধতা পাবে না। চলমান নিপীড়নমূলক স্বৈরতান্ত্রিক শাসন ও জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার হরণকে তা তীব্রতর করবে। বিবৃতিতে তিনি নিজেদের অধিকার রক্ষায় গণতন্ত্র ও স্বাধীনতাপ্রিয় মানুষকে সংগঠিত হয়ে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

Check Also

IMG_6406

ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে এখন ভাতের অধিকারও কেড়ে নিতে চায়

শ্রমিকদের বাঁচার আন্দোলনে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস বন্ধ করুন গার্মেন্ট শ্রমিক সুমন হত্যার প্রতিবাদে ও গার্মেন্ট শ্রমিকদের …